সব কিছু
facebook channelkhulna.tv
খুলনা সোমবার , ২৬শে অগ্রহায়ণ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ , ১১ই ডিসেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
কৃষিপণ্যের মূল্য হ্রাসে স্থবির গ্রামীণ অর্থনীতি | চ্যানেল খুলনা

কৃষিপণ্যের মূল্য হ্রাসে স্থবির গ্রামীণ অর্থনীতি

শেখ মাহতাব হোসেন:: খুলনা ডুমুরিয়া ধান-পাটসহ কৃষিপণ্যের মূল্যহ্রাসে গ্রামীণ অর্থনীতি স্থবির হয়ে পড়েছে। অর্থ সংকটে চাষাবাদ ও সংসার যাত্রা নির্বাহ কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। জানা গেছে, গত দেড় বছরে সরকার নিয়ন্ত্রিত ইউরিয়া, ডিএপি, টিএসপি ও পটাশ সারের মূল্য তুলনামূলক কম বৃদ্ধি পেয়েছে। আর লাঙ্গল, মই, বীজ, কীটনাশক, মুজুরি, সেচ খরচসহ সব ধরণের কৃষি উপকরণের মূল্য প্রায় ৫০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। একইভাবে মানুষের জীবনযাত্রা খরচ কোন কোন ক্ষেত্রে ৫০% বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশেষ করে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য আলু, আদা, জিরা, মরিচের দাম দ্বিগুণের বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে। ডাল ছাড়া সব ধরণের তরিতরকারি, মাছ, মাংসের দাম একইভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে উৎপাদনসহ জীবনযাপন খরচ বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু এলাকার ৯০ ভাগ মানুষ কৃষক। সেই কৃষকদের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্যমূল্য প্রাপ্তির নিশ্চয়তা নেই। সব পণ্যের মূল্য উর্ধ্বমুখী হলেও গত কয়েক মাসে ধান পাটের মূল্য নিম্নমুখী হয়েছে।

গত বছর ঠিক এই সময় ৬০ কেজি ধান ২ হাজার ৪শ টাকায় বিক্রি হয়েছে। সেই ধানের বর্তমান বাজার দাম ১ হাজার ৭শ টাকায় নেমে এসেছে। ২ হাজার ১শ টাকা মণের পাটের দাম ১ হাজার ৫শ টাকায় নেমে এসেছে। এদিকে মাঝে মাঝে অগ্নিমূল্যের তরিতরকারি কিনে দেশের মানুষের নাভিঃশ্বাস উঠছে। কিন্তু কৃষক সেই তরিতরকারির ন্যায্যমূল্য পায় না। মধ্যস্বত্বভোগীরা লোপাট করছে কৃষকের পরিশ্রমের ফল। অন্যদিকে ধানের দাম হ্রাসের সঙ্গে বহু মানুষের আগাম জাতের আমন ধানে কারেন্ট পোকার আক্রমণে ফলন বিপর্যয় ঘটেছে। টিপনা ফরাদ সরদার জানায়, কারেন্ট পোকার আক্রমণে তার অর্ধবিঘা জমিতে সাড়ে ৭ মণ ধান হয়েছে। ধানের দাম হ্রাসের কারণে তার উৎপাদন খরচ উঠেনি।

মির্জাপুরের শুকুর আলী জানায়, কারেন্ট পোকার আক্রমণে তার ১৫ শতক জমিতে ৪ মণ ধান উৎপাদন হয়েছে। ফলে সংসার নির্বাহ পরবর্তী ফসল চাষের খরচ যোগানো কষ্টকর হয়ে পড়েছে।

শোভনার‌ জাকির শেখ জানায়, তার বিঘা প্রতি ৮মণ ধান হয়েছে। হাসানপুর মোসলেম উদ্দিন জানান, ৩ বিঘায় ২৪ মণ ধান হয়েছে। এতে করে ধান। চাষের খরচ উঠছে না। তবে কৃষি কর্মকর্তারা কারেন্ট পোকার আক্রমণের ফলন হ্রাসের বিষয় অস্বীকার করেন। তবে কৃষকরা ফলন হ্রাসে অর্থ সংকটে সার, কীটনাশকের দোকানে দেনা, কাপড় চোপড় ও মুদি দোকানের দেনা পরিশোধে হিমশিম খাচ্ছে বলে জানান। ফলে কৃষকের হাতে টাকা পয়সা নেই।

ডুমুরিয়ার সিংহভাগ মানুষ কৃষক। সেই সিংহভাগ কৃষকের হাতে পয়সা না থাকায় দোকানপাটে বেচাকেনা হ্রাস পেয়েছে। একই কারণে দিনমুজুর, ভ্যান ইজিবাইক থ্রি-হুইলার চালকসহ বিভিন্ন পেশার মানুষের আয় রোজগার হ্রাস পেয়েছে। এতে করে ডুমুরিয়া সদরসহ গ্রামগঞ্জের সমস্ত শ্রেণির মানুষের খাওয়া খরচ ছাড়াও চাষাবাদের খরচ কমাতে হচ্ছে। ফলে চাষবাস, ব্যবসা বাণিজ্যে অচলাবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে। স্থবির হয়ে আসছে গ্রামীণ অর্থনীতির চাকা।

Your Promo BD

দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চল আরও সংবাদ

শ্রেষ্ঠ জয়িতার পুরস্কার পেলেন সফল জননী রহিমা বেগম

পাইকগাছায় আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস পালিত

পাইকগাছায় মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে এমপি প্রার্থী রশীদুজ্জামানের মতবিনিময়

বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে ৮৪ মেট্রিক টন বিস্ফোরক দ্রব্য আমদানি

তালায় জলবায়ু অভিযোজন বাজেট প্রণয়নে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

রামপালে বিশ্ব মানবাধিকার দিবস পালন

চ্যানেল খুলনা মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন  
DMCA.com Protection Status
উপদেষ্টা সম্পাদক: এস এম নুর হাসান জনি
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: শেখ মশিউর রহমান
It’s An Sister Concern of Channel Khulna Media
© ২০১৮ - ২০২২ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | চ্যানেল খুলনা.বাংলা, channelkhulna.com, channelkhulna.com.bd
যোগাযোগঃ কেডিএ এপ্রোচ রোড (টেক্সটাইল মিল মোড়), নিউ মার্কেট, খুলনা।
ঢাকা অফিসঃ ৬৬৪/এ, খিলগাও, ঢাকা-১২১৯।
ফোন- 09696-408030, 01704-408030, ই-মেইল: channelkhulnatv@gmail.com
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্তির জন্য আবেদিত।