সব কিছু
facebook channelkhulna.tv
খুলনা রবিবার , ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ , ২৩শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
রিমাল ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত কয়রা পাইকগাছা দাকোপের অনেক গ্রাম | চ্যানেল খুলনা

রিমাল ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত কয়রা পাইকগাছা দাকোপের অনেক গ্রাম

ঘূর্ণিঝড় রিমালের আঘাতের তিন দিন পরও পানির নিচে খুলনার কয়রা, দাকোপ ও পাইকগাছার বিভিন্ন গ্রাম। এসব স্থানে বাঁধের ভাঙা অংশ মেরামতে তিন দিন ধরে কাজ করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) ও স্থানীয় মানুষ। সকালে মেরামতের পর দুপুরের জোয়ারের চাপে বিকল্প বাঁধ ভেঙে যাচ্ছে। এতে প্লাবিত হচ্ছে আশপাশের গ্রাম। গতকাল বুধবার সকালে বাঁধ মেরামতের পর দুপুরে একই ঘটনা ঘটে।

পাউবো কর্মকর্তা ও স্থানীয়রা জানান, রিমালের আঘাতে খুলনার তিন উপজেলার আট পয়েন্টে বাঁধ ভেঙে যায়। এতে প্লাবিত হয় শত শত বাড়িঘর, মাছের ঘের ও ফসলি জমি।

বিরামহীন চেষ্টার পর পাঁচটি পয়েন্টে বাঁধ মেরামত সম্ভব হয়েছে। তবে কয়রার মহারাজপুর ইউনিয়নের দশহালিয়া, দাকোপের তিলডাঙ্গা ইউনিয়নের দক্ষিণ কামিনীবাসিয়া এবং পাইকগাছার দেলুটি ইউনিয়নের পেড়িখালী গ্রামের ভাঙা বাঁধ দিয়ে এখনও পানি ঢুকছে।

খোজ নিয়ে দেখা যায়, দাকোপের দক্ষিণ কামিনীবাসিয়া গ্রামে বাঁধ মেরামতের জন্য সকাল থেকে কাজ শুরু হয়। বাঁধের প্রায় ৬০ শতাংশ কাজ শেষ হতেই জোয়ার চলে আসে। জোয়ারের চাপে এক পর্যায়ে পানিতে ভেসে যায় বিকল্প বাঁধ। এতে তিলডাঙ্গা ও পানখালী ইউনিয়নের ২০ থেকে ২২টি গ্রাম তলিয়ে যায়। একই দৃশ্য দেখা গেছে কয়রার দশহালিয়া গ্রামে। বুধবার সকালে দুই শতাধিক মানুষ মূল ভাঙনে কাজ শুরু করেন। দুপুরের আগেই বাঁধটির ৮০ শতাংশ মেরামত কাজ শেষ করা হয়। দুপুর পৌনে ২টার দিকে নদীতে পূর্ণ জোয়ারের সময় পানির চাপে তা ভেঙে যায়। এতে ওই গ্রামের শতাধিক বাড়িঘর ফের পানিতে তলিয়ে যায়।
ওই স্থানে বাঁধ মেরামত কাজে অংশ নিয়েছিলেন স্থানীয় গ্রাম্য চিকিৎসক নুরুল ইসলাম। তিনি জানান, কাজ করার জন্য প্রচুর সংখ্যক মানুষের উপস্থিতি ছিল। তবে সময়মতো কাজের সরঞ্জাম জোগান দিতে পারেননি পাউবো কর্মকর্তারা। বিশেষ করে বালুভর্তি বস্তার অভাবে মেরামত করার পরও বাঁধটি টিকিয়ে রাখা যায়নি।

স্থানীয়রা জানান, ঘূর্নিঝড় রিমালের আঘাতে দাকোপ উপজেলার ৭নং তিলডাঙ্গা ইউনিয়নের দক্ষিণ কামনিবেসিয়া বটবুনিয়া, ১নং পানখালী ইউনিয়নের পানখালী ও লক্ষ্মীখোলা গ্রামের নদী ভাঙনের কারনে গ্রামের সকল ঘর বাড়ি পানিতে প্লাবিত হয়ে আছে। স্থানীয় বাসিন্দারা নদী ভাঙন রোধের চেষ্টা করেও কোনো প্রতিকার পাচ্ছে না। জনপ্রতিনিধিরা কোনো স্থায়ী সমাধান দিতে পারছে না। নির্বাচনের আগে তাঁরা বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি দিলেও বাস্তবে তা রক্ষা করতে পারেনি। দাকোপবাসি ত্রাণ চায় না তাঁরা নিরাপদ ভেড়ি বাঁধ চায়। যদি দ্রুত নদী ভাঙনের স্থায়ী সমাধান না করা হয় তাহলে জনসাধারণের ঘরবাড়ি সব নদীতে বিলিন হবে। প্রতি বছর উপকূল অঞ্চলের মানুষের এই নদী ভাঙনের সাথে লড়াই করে বাঁচতে হয়া যদি টেকসই ভেড়ি বাধ না দেওয়া হয় তাহলে মানুষের এই দূরাবস্থা কখনো লাঘব হবে না। তাই দাকোপের মানুষের সময়ের দাবি দাকোপ প্রশাসন এবং স্থানীয় প্রতিনিধিদের কাছে তারা যেনো স্থায়ী সমাধান করে। যাতে নদী ভাঙনে যেনো মানুষের কষ্টে অর্জিত সম্পদ এই ভাবে আর নদী গর্ভে বিলিন না হয়ে যায়।

পাউবোর খুলনা নির্বাহী প্রকৌশলী-২ আশরাফুল আলম বলেন, ঘূর্ণিঝড়ে আট স্থানে বাঁধ ভেঙে লোকালয়ে পানি ঢোকে। প্রথম দিন পাঁচ স্থানে বিকল্প বাঁধ নির্মাণ সম্ভব হয়। তবে তিনটি স্থানে তিন দিন চেষ্টা করেও বাঁধ টিকিয়ে রাখা যাচ্ছে না। আমরা চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। তিনি বলেন, আপাতত বিকল্প বাঁধ তৈরি করে পানি ঢোকা বন্ধ করাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। পরে ক্ষতিগ্রস্ত স্থান স্থায়ীভাবে মেরামতের উদ্যোগ নেওয়া হবে।

https://channelkhulna.tv/

খুলনা আরও সংবাদ

উপকূলের উন্নয়নে জাতীয় বাজেটে বিশেষ বরাদ্দের দাবিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ

খুবির অর্থ ও হিসাব বিভাগের উপ-পরিচালক আনিসুর রহমানের ইন্তেকালে উপাচার্যের গভীর শোক

খুলনা ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি শিশিরের সুস্থতা কামনা

কেইউজে’র নব-নির্বাচিত নেতৃবৃন্দের সালাহউদ্দিন জুয়েল এমপি’র সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ

খুবির প্রধান প্রকৌশলী (ভারপ্রাপ্ত) এস এম মনিরুজ্জামানের পিতার ইন্তেকালে উপাচার্যের গভীর শোক

জোড়াগেট পশুর হাটে অভিযানে ১ লাখ টাকার জালনোট সহ গ্রেপ্তার ১

চ্যানেল খুলনা মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন  
DMCA.com Protection Status
উপদেষ্টা সম্পাদক: এস এম নুর হাসান জনি
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: শেখ মশিউর রহমান
It’s An Sister Concern of Channel Khulna Media
© ২০১৮ - ২০২২ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | চ্যানেল খুলনা.বাংলা, channelkhulna.com, channelkhulna.com.bd
যোগাযোগঃ কেডিএ এপ্রোচ রোড (টেক্সটাইল মিল মোড়), নিউ মার্কেট, খুলনা।
ফোন- 09696-408030, 01704-408030, ই-মেইল: channelkhulnatv@gmail.com
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্তির জন্য আবেদিত।